খালেদার মুক্তির চাবিকাঠি আইনমন্ত্রীর হাতে

সরকার পরিকল্পিতভাবে খালেদা জিয়ার কারাবাস দীর্ঘায়িত করছে, এমন অভিযোগ শুরু থেকেই করে আসছেন বিএনপি নেতারা। আর খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ও আদেশ নিয়ে ইতিমধ্যে যেসব ঘটনা ঘটেছে তা সত্যিকার অর্থেই নজিরবিহীন। ইতিপূর্বে অন্য কোনো ভিআইপি বা সাধারণ বন্দির জামিন শুনানি বা আদেশ নিয়ে এমন ঘটনার নজির খুঁজে পাওয়া যায়নি।

আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, হাইকোর্ট ইচ্ছে করলে প্রথম দিনেই খালেদা জিয়াকে জামিন দিতে পারতেন। সেই ইখতিয়ার হাইকোর্টের আছে। কিন্তু হাইকোর্ট এটা শুনানির জন্য পরের রোববার দিন ধার্য করেন। রোববার শুনানি শেষে বললেন যে নিম্ন আদালত থেকে নথি না আসা পর্যন্ত আদেশ দেয়া যাবে না। তারপর চেম্বার আদালত ইচ্ছে করলে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন খারিজ করে দিতে পারতেন। কিন্তু তারা সেটা না করে শুনানির জন্য আবার পাঠালেন প্রধান বিচারপতির আপিল বেঞ্চে। প্রধান বিচারপতি ঠুনকো অজুহাতে খালেদা জিয়ার জামিন স্থগিত করে দেন।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ কর্তৃক স্থগিত হওয়াকে সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন বলে আখ্যা দিয়েছে বিএনপি। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতারা বিএনপির এ অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছেন। তারা বলছেন, আদালতের ওপর সরকারের কোনো হস্তক্ষেপ নেই।

Check Also

চাঁদপুর-৪ ফরিদগঞ্জ আসনে নতুন প্রার্থী চায় আওয়ামীলীগ বিএনপিতে পুরাতন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ চাঁদপুর-৪ ফরিদগঞ্জ আসনে নতুন প্রার্থী চায় আওয়ামীলীগ বিএনপিতে পুরাতনেই প্রধান্য। চাঁদপুর জেলার …

Powered by themekiller.com